চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেললাইনের কাজ অতি দ্রুত শুরু করা হবে।- ডিসি ইলিয়াছ হোছাইন

এম.এ.এইচ. রাব্বী:
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকার কথায় নয়, কাজে বিশ্বাসী। যা বলেন তা বাস্তবায়ন করে ছাড়েন। দেশ ও দেশের মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে শেখ হাসিনা সরকার দিন রাত কাজ করে যাচ্ছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বধীন অামলে সমুদ্র ও মহাকাশ জয় করতে সক্ষম হয়েছে। উন্নত দেশের কাঁতারে অামরা যেতে চাই। বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশী উন্নয়ন প্রকল্প হচ্ছে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারে।
১লা অাগষ্ট বিকেলে জেলা প্রশাসনের অায়োজনে চট্টগ্রামের সাতকানিয়া ও লোহাগাড়ায় দোহাজারী হতে রামু হয়ে কক্সবাজার এবং রামু হতে মায়ানমারের নিকটতম গুনধুম পর্যন্ত সিঙ্গেল লাইন ডুয়েল গেজ ট্রাক নির্মাণ শীর্ষক প্রকল্পের ক্ষতি পূরণের এল.এ চেক বিতরণ অনু্ষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক ইলিয়াছ হোসাইন এসব কথা বলেন।
তিনি অারো বলেন, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেল লাইনের কাজ অতি দ্রুত শুরু করা হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই প্রকল্পকে সর্বাগ্রে শুরু করার নির্দেশ দিয়েছেন। এই রেল লাইনের কারণে সাতকানিয়া-লোহাগাড়ার মানুষ  সব চেয়ে বেশী উপকৃত হবে।
সাতকানিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোবারক হোসেন ও লোহাগাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অাবু অাসলামের যৌথ সভাপতিত্বে পৃথক অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্হিত ছিলেন, চট্টগ্রাম অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক এল.এ শাখা মোহাম্মদ মোমিনুর রশিদ, উপ-প্রকল্প পরিচালক রেলওয়ে আবুল কালাম চৌধুরী।
এ সময় উপস্হিত ছিলেন, দিপঙ্কর তচঙ্গা ও নুরুল ইসলামের যৌথ সঞ্চালনায় লোহাগাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান ফরিদ উদ্দিন খান, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ সদস্য আনোয়ার কামাল, বড়হাতিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মুহাম্মদ জুনাইদ, অাধুনগর ইউপি চেয়ারম্যান অাইয়ুব মিয়া, পদুয়া ইউপি চেয়ারম্যান জহির উদ্দীন, চরম্বা ইউপি চেয়ারম্যান মাস্টার শফিকুল ইসলাম, কলাউজান ইউপি চেয়ারম্যান অাবদুল ওয়াহেদ, পুটিবিলা ইউপি চেয়ারম্যান হাজ্বী ইউনুছ, লোহাগাড়া সদর ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নুরুচ্ছাফা চৌধুরী, লোহাগাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।
এ উপলক্ষে সাতকানিয়া ও লোহাগাড়া উপজেলা মিলনায়তনে পৃথক পৃথক ভাবে ১১৩টি চেকের মাধ্যমে ৩১ কোটি ৩১ লাখ ৩০ হাজার ৮’শত একাত্তর টাকার চেক হস্তান্তর করা হয়।

No comments