কিছু কথাঃ লোহাগাড়া বটতলী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ(১) - শাহাব উদ্দিন।



প্রতি ওয়াক্তে ১৫০০/২০০০ মুসল্লি জামাতে নামাজ আদায় করেন (ফজর ওয়াক্ত ছাড়া)।
রমজান মাসে তা বেড়ে দ্বিগুনেরও বেশি হয়।

জুমাবারে কম করে হলেও ৪/৫ হাজারের উপরে।

রমজানের জুমায় রাস্তায় মার্কেটের গলি ও ছাদসহ প্রায় ৬/৭ হাজার ছাড়িয়ে যায়।

এতো এতো মুসল্লি সমাগমের মসজিদে নিজস্ব কোন আয়ের উৎস নাই (সামনের মুখে লাইব্রেরী ও ছোট্ট পান দোকান ও ১/২ টা ফুটপাতের ভাড়া আসে সামান্য)।

গত জুমার পর আসর হইতে আজকে জুমা পর্যন্ত চাঁদা উঠেছে কতো?
জানতে ইচ্ছে করছে আপনার?
তবে জেনে রাখুন ১৩৮১৭ টাকা মাত্র।

লেখা লম্বা হয়ে যাচ্ছে, তাই, না হয় আরো অনেক ফিরিস্তি দেওয়ার ছিলো।

শুধু বুঝার জন্যই বলছি, প্রতি মাসে শুধু এসির বিলই আসতেছে ৩৫/৪০ হাজার টাকা।

আজ থেকে প্রত্যেকে চাঁদা দেওয়ার মাত্রা বাঁড়িয়ে দিন।

আগামী জুমাবার পর্যন্ত যদি চাঁদা এই রকম থাকে?
তবে এসি কেনো, ফ্যানও কমিয়ে চালাতে বাধ্য হবে কর্তৃপক্ষ।
রাগ করবেন না, প্রতি ওয়াক্তে ১ টাকা করে জনপ্রতি দিলেও প্রতিদিন ৫/৬ হাজার টাকা উঠার কথা।
প্রতি ওয়াক্তে দেবেন বলে কথা নাই।
দৈনিক ৫ টাকা করে হলেও দিন।
আর বিশেষ অনুরোধ যারা এসি রুমে যায়গাপান?
দয়া করে চাঁদার মাত্রাটা বাঁড়িয়ে দিন।

No comments